March 23, 2020
জেলায় সিরিজ অভিযান

সাতক্ষীরা চিত্র: করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জেলার সাত উপজেলায় সিরিজ অভিযান চলছে। অভিযানে রবিবার ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এক লক্ষ ৪৩ হাজার ৩০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ ও র‌্যাবের সমন্বয়ে গঠিত বিশেষ টিম শুক্রবার জরুরী সভার পর শনিবার থেকে সর্বশক্তি নিয়ে এ অভিযানে নেমেছে। অভিযানের অংশ হিসেবে রবিবার দিনভর চলে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অভিযান। জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল রবিবার বিকালে গণমাধ্যমকে এক বার্তায় জানান, রবিবার বেলা ২টায় শহরের নিউমার্কেট এলাকার লাবণী সিনেমা হলে অভিযান চালানো হয়।
অভিযানকালে প্রায় অর্ধশতাধিক ব্যক্তি সিনেমা দেখছিলেন। তাৎক্ষণিকভাবে সিনেমা হলটি বন্ধ করা হয় এবং সিনেমা প্রদর্শনীর সরঞ্জামাদি (মনিটর, সিপিইউ এবং হার্ডডিস্ক) জব্দ করা হয়। এছাড়া শহরের সংগীতা সিনেমা হলে অভিযানকালে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত সিনেমা হল ২টি বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
এদিকে শনিবার রাতে জেলার প্রতিটি উপজেলায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতামূলক অভিযান পরিচালনা করা হয়। প্রতিটি উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) এবং সহকারী কমিশনারদের নেতৃত্বে বাজার মনিটরিং করা হয়। করোনা প্রতিরোধে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ হয় এবং হোম কোয়ারেন্টিন অমান্য করায় মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে জরিমানা আদায়ের পাশাপাশি হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হয়।

সাতক্ষীরার সদর উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেবাশীষ চৌধুরীর নির্দেশে করোনা প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টিতে উপজেলার প্রতি ইউনিয়নে মাইকিং করা হয়েছে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) রবিবার বেলা ২টায় সদর উপজেলার নিউমার্কেট এলাকার লাবণী সিনেমা হলে অভিযান পরিচালনা করেন।
এছাড়া বিদেশ থেকে সম্প্রতি দেশে ফিরেছেন এমন ব্যক্তিদেরকে অমোছনীয় কালির সিল মারার কার্যক্রম চলমান রেখেছেন। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে শহরের সুলতানপুর বড় বাজার এবং ভোমরা পোর্ট বাজারে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো. স্বজল মোল্লা এবং ইন্দ্রজিৎ সাহা মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ৫০০০ টাকা জরিমানা আদায় করেন।
এদিকে কালিগঞ্জ উপজেলায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে অস্বাভাবিক দ্রব্যমূল্যের অভিযোগ গ্রহণকারী ১২টি টিম ১২ টি বড় বড় বাজারে অবস্থান করছেন। আর ১২টি ইউনিয়নে ১২টি করোনা ফাইটিং টিম কাজ করছে। মোট ২৪টি টিমে প্রায় ১২০জন অফিসার কাজ করছেন সেখানে। কালিগঞ্জের নাজিমগঞ্জ বাজার ও নলতা হাটখোলা বাজারে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে অভিযান পরিচালনা করা হয়। ৫টি মামলায় মোট ৪০ হাজার টাকা আদায় করা হয়েছে।
অপরদিকে, তালা উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতকরণে লাল নিশান দিয়ে চিহ্নিত করে দেয়া হয়েছে। যা ইতোমধ্যে হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে কার্যকর ভূমিকা পালন করছে। তালা উপজেলায় ইতোমধ্যে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে।
এদিকে শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের কলবাড়ি বাজারে আইন অমান্য করে বিদেশ ফেরত ব্যক্তিকে নিজ কাঁকড়া আড়তে রাখায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার অভিযান চালিয়ে ১৫ দিনের জন্য কাঁকড়া আড়ত সিলগালা করে দিয়েছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) দ্রব্যমূল্যের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে গাবুরা, পদ্মপুকুর, নয়াবিকিসহ কয়েকটি বাজারে অভিযান চালিয়ে ৮৭ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা আদায় করেন।
জেলা প্রশাসক আরও জানান, কলারোয়া উপজেলায় চায়ের দোকানে-হোটেলে আড্ডা, টিভি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সহকারী কমিশনার (ভূমি), কলারোয়া উপজেলার বাজারগুলোতে অভিযান চালিয়ে জানতে পারেন সেখানে দ্রব্যেমূল্য নিয়ন্ত্রণে আছে।
দেবহাটা উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে ৫টি অভিযান পরিচালনা করেন। সবাই হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন।
আশাশুনি উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার দ্রব্যমূল্যের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে আশাশুনি, কাদাকাটি, মহিসপুর বাজারে অভিযান চালিয়ে ১০ হাজার ৮০০ টাকা জরিমানা করেছেন।
জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল বলেন, জনস্বার্থে এমন অভিযান অব্যাহত থাকবে।

আরো খবর...


সম্পাদক ও প্রকাশক মো: আমিনুল ইসলাম লাল্টু (উপজেলা চেয়ারম্যান কলারোয়া)

http://satkhirachitra.com e-mail: satkhirachitra@gmail.com cell: 01716300861,01712202907