বিশিষ্ট চক্ষু চিকিৎসক ডা. কে এম ওয়ালিউল্লাহকে গতকাল শনিবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে রাজধানীর পূর্ব রামপুরা এলাকার ৬৮/১ ই হাজীপাড়া থেকে একটি কালো মাইক্রোবাসে তুলে নেয়া হয়েছে তার পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সাদা পোশাকে ডিবি পরিচয়দানকারী আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাকে তুলে নিয়ে গেছে। এসময় তিনি নামাজ শেষে চেম্বারে যাচ্ছিলেন। তবে কী কারণে তাকে তুলে নেয়া হয়েছে তা জানায়নি ওই সাদা পোশাকধারীরা।

পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ডা. কে এম ওয়ালি উল্লাহ একজন বিশিষ্ট চক্ষু চিকিৎসক। দেশের হাজার হাজার মানুষ তার কাছ থেকে সেবা নিয়ে সুস্থভাবে জীবনযাপন করছেন। দীর্ঘ দিন প্রবাস জীবন শেষে দেশে ফিরে তিনি মানবতার সেবায় তৎপর হন। প্রতিষ্ঠা করেন ভিশন আই কেয়ার। যেখান থেকে হাজারো মানুষ সেবা নিয়ে উপকৃত হচ্ছে। মানব সেবায় আত্মউৎসর্গিত ডা. ওয়ালিউল্লাহ অন্যান্য দিনের মতো রোগী দেখার জন্য চেম্বারের উদ্দেশে রওনা হলে তাকে তুলে নেয়া হয়। যা সম্পূর্ণ অমানবিক ও মানবাধিকার লঙ্ঘন।

ডা. কে এম ওয়ালিউল্লাহর স্ত্রী রওশন আরা বেগম বলেন, আমাদের পরিবারে তিন সন্তানের মধ্যে একসন্তান কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস শেষ করে উচ্চ শিক্ষা করছেন, আরেক সন্তান তুরস্কে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করছেন। আরেক কন্যা বুয়েটের ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করেছেন। সামাজিকভাবে অত্যন্ত সজ্জন ও সম্মানিত এরকম একজন ব্যক্তিকে বিনা কারণে তুলে নেয়া সম্পূর্ণ অন্যায়, অবিচার ও জুলুম।তিনি বলেন, আমরা পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি জানাচ্ছি যে তার বিরুদ্ধে যদি কোনো প্রকার অভিযোগ থাকে তাহলে তা আইনানুগ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সমাধান বা ব্যবস্থা নিতে পারে প্রশাসন। কিন্তু রাতের আধারে অজ্ঞাত লোকজন কোনো প্রকার তথ্য না দিয়ে তাকে তুলে নেয়ার কোনো মানে হয় না। আমরা বয়োবৃদ্ধ ডা.কে এম ওয়ালিউল্লাহর সন্ধান চাই। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী,আইজিপি, ডিএমপি কমিশনারের কাছে সহযোগিতা কামনা করছি। যাতে চিকিৎসক হিসেবে তিনি মানব সেবায় আবারও আত্মনিয়োগ করতে পারেন।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here